আন্তর্জাতিকফিচার সংবাদরাজনীতি

রাজ্যসভায় আসন সংখ্যা কমেছে বিজেপির

ভারতের মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক ও হরিয়ানায় রাজ্যসভা নির্বাচনে বাড়তি আসন পেয়েছে দেশটির ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। তবে মোট আসন আগের চেয়ে কম হয়েছে। ভোটের আগে রাজ্যসভায় বিজেপির আসন ছিল ৯৫টি। এখন আসন ৯২টি। এর চেয়ে কংগ্রেসের আসন ২৯ থেকে বেড়ে হলো ৩১টি।

গত মার্চে প্রায় তিন দশক পরে ভারতের কোনো একটি দল রাজ্যসভায় ১০০ আসন দখল করে। কিন্তু একাধিক সংসদ সদস্যের মেয়াদ শেষ হওয়ায় জুন মাসেই বিজেপির আসন সংখ্যা নেমে আসে ৯৫-তে। চলতি মাসে দেশের ১৫টি রাজ্যে ৫৭টি আসনে রাজ্যসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিজেপির আসন সংখ্যা ৯৫ থেকে নেমে ৯২-তে এসে দাঁড়িয়েছে।বিজেপির তরফে বলা হচ্ছে, পাঞ্জাব, ছত্তীসগড় বিধানসভায় খারাপ ফলাফল ও উত্তরপ্রদেশে গত বিধানসভার চেয়ে কম আসন পাওয়ার কারণে এ বার তিনটি আসন হারাতে হয়েছে।

বিজেপির এক নেতা বলেন, ‘তাও কর্ণাটক মহারাষ্ট্র ও হরিয়ানায় একটি করে বাড়তি আসন লাভ করায় কিছুটা ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া গেছে। তা না হলে আসন সংখ্যা ৮৯-তে গিয়ে দাঁড়াতো। সে ক্ষেত্রে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে ভোটের ফারাক আরও বৃদ্ধি পেতো। আর ভবিষ্যতে রাজ্যসভায় কোনো বিল পাশের সময় ভোটাভুটির প্রশ্নে আগের চেয়ে দুর্বল অবস্থানে থাকতো দল।’

বর্তমানে প্রেসিডেন্ট মনোনীত সাতটি আসন ফাঁকা রয়েছে। ওই পদগুলোতে প্রার্থী দিলেই রাজ্যসভায় দলীয় সংসদ সদস্য সংখ্যা ফের একশোর কাছাকাছি হয়ে যাবে বলে দাবি করছেন বিজেপির নেতারা।আঞ্চলিক দলের মধ্যে এ বারের নির্বাচনে ভাল ফল অর্জন করেছে অন্ধ্রপ্রদেশের শাসক দল ওয়াইএসআর কংগ্রেস ও আম আদমি পার্টি। ওয়াইএসআর কংগ্রেস দলের সংসদ সদস্য সংখ্যা ৬ থেকে বেড়ে হয়েছে ৯। যাতে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে শাসক দল বিজেপি। ওয়াইএসআর কংগ্রেস নিজেদের অ-কংগ্রেস এবং অ-বিজেপি দল হিসেবে দাবি করলেও, অতীতে রাজ্যসভায় ভোটাভুটির সময়ে ওই দলের সংসদ সদস্যরা হয় শাসক শিবিরকে সমর্থন করেছেন না হয় ভোট না দিয়ে ফায়দা করে দিয়েছেন শাসক শিবিরকে।

অন্যদিকে, আম আদমি পার্টির সদস্য সংখ্যা ৮ থেকে বেড়ে হয়েছে ১০। সংখ্যার বিচারে এই মুহূর্তে রাজ্যসভায় চতুর্থ বৃহত্তম দল হলো আপ।এছাড়া চলতি রাজ্যসভা ভোটের পরেও সংসদ সদস্য সংখ্যা একই রকম রয়েছে ডিএমকে (১০), বিজেডি (৯), টিআরএস (৭), জেডিইউ (৫), এনসিপি (৪) ও শিবসেনার (৩)। বড় দলের মধ্যে সমাজবাদী পার্টির আসন সংখ্যা পাঁচ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে তিনে। যদিও তাদের সমর্থনে নির্দল প্রার্থী হিসেবে রাজ্যসভায় জিতে এসেছেন কপিল সিব্বল ও আরএলডি-র জয়ন্ত চৌধুরী। মায়াবতীর দল বিএসপির সংসদ সদস্য সংখ্যা তিন থেকে নেমে এসেছে ১-এ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button
Close
Close